Latest >
তিন দফা দাবি নিয়ে অল ইন্ডিয়া স্টুডেন্ট ফেডারেশনের পক্ষ থেকে আগরতলা শিক্ষাভবনের উচ্চ শিক্ষা দপ্তরের অধিকর্তার নিকট দাবি পেশ  July 29, 2021, 5:06 p.m.    আই-পেকের সদস্যরা আদালতের দ্বারস্থ হলেন , রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে পাল্টা মামলার ভাবনা I-PACK টিমের   July 29, 2021, 5:04 p.m.    বোকা! নির্লজ্জ! ব্যর্থ ! ভীত! জনবিরোধী! ' প্রাক্তন সিএম মানিক সরকার বিপ্লব দেব সরকারকে আই-পিএসি দলের হাউস অ্যারেস্টের উপরে হিট করলেন  July 27, 2021, 6:22 p.m.    12 জন তপশিলি জাতি ভুক্ত শ্রেণীর লোককে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় স্থান করে দেওয়ার জন্যে দেশের যশস্বী প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে 100 ধন্যবাদ চিঠি প্রেরণ সদর জেলার তপশিলি জাতি মোর্চার পক্ষ থেকে   July 27, 2021, 6:20 p.m.    একাংশ চাকমারা সামাজিক মাধ্যমে বিভ্রান্তি মূলকভাবে সাম্প্রদায়িক পোস্ট দিয়ে রাজ্যের শান্তি সম্প্রীতি নষ্ট করতে চাইছে সাংবাদিক সম্মেলনে এমনটাই মন্তব্য করলেন তীপ্রাহুদা নেতৃত্ব   July 27, 2021, 6:18 p.m.    সাম্প্রদায়িক উস্কানী চাকমাদের উপর তিপ্রাহুদার, সাংবাদিক সম্মেলনে জানালেন চাকমা ন্যাশনাল কাউন্সিল অফ ইন্ডিয়া  July 26, 2021, 9:43 p.m.    নাইট কারফিউতে তেলিয়ামুড়া থানার পুলিশের হাতে আটক অবৈধ বিলেতি মদ সহ ১ নেশা কারবারী   July 26, 2021, 9:20 p.m.    কারগিল দিবস কে সামনে রেখে পশ্চিম থানা ও মহিলা থানার পুলিশ কর্মীদের সংবর্ধনা জ্ঞাপন প্রদেশ মহিলা মোর্চার  July 26, 2021, 9:17 p.m.    সকলের মাঝে সকলের পাশে গরিব মানুষের মসিহা সুরজিৎ দত্ত  July 26, 2021, 9:02 p.m.    নেতা নয় নীতির পরিবর্তন দিয়ে একটি রাষ্ট্রকে বিচার করা যায়- মানিক সরকার  July 26, 2021, 8:50 p.m.   

জনতার ভাষায়, জনতার সাথে |
Ad Image Here
নির্বাচন কমিশনকে কড়া বার্তা সুপ্রিম কোর্টের,সংবাদমাধ্যমকে দোষারোপ করা বন্ধ করুন
May 6, 2021, 7:14 p.m.
  

জনতার কলম ,নিজস্ব প্রতিনিধি নয়াদিল্লি: সুপ্রিম কোর্টেও ধাক্কা খেল কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশন। কিছুদিন আগে মাদ্রাজ হাই কোর্ট করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের জন্য কমিশনকে দায়ী করেছিল। তার বিরোধিতা করেই সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিল কমিশন। কিন্তু সেখানেও ধাক্কা খেল তারা। এই মন্তব্য যাতে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম না দেখানো হয়, নির্বাচন কমিশনের সেই আবেদনও খারিজ করে দিল আদালত। কমিশনের দাবি নস্যাৎ করে দিয়ে শীর্ষ আদালত স্পষ্ট জানিয়ে দিল সংবাদমাধ্যমকে খবর প্রকাশ করা থেকে বিরত রাখা যাবে না। সুপ্রিম কোর্টের তরফে এদিন বলা হয়, আর্টিকেল ১৯-এ শুধু জনগণের বাকস্বাধীনতা ও মত প্রকাশের অধিকার দেওয়া হয়নি। গণমাধ্যমকেও কাছে এই অধিকার দেওয়া হয়েছে। গণমাধ্যমেক কণ্টরোধ করা সুপ্রিম কোর্টের পক্ষে পশ্চাদপসরণ হবে। সংবাদমাধ্যমকে আদালতের কার্যক্রমের রিপোর্ট করা থেকে বিরত রাখতে কমিশন যে দাবি তুলেছে তার এদিন এভাবেই জবাব দেয় দেশের শীর্ষ আদালত। এর পাশাপাশি দেশের করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় দেশের বিভিন্ন হাই কোর্টগুলি যেভাবে একাধিক পদক্ষেপ গ্রহণ করছে, তারও এদিন ভূয়সী প্রশংসা করে বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড়ের বেঞ্চ। করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি নিয়ে নির্বাচন কমিশনকে তুলোধনা করে মাদ্রাজ হাই কোর্ট। আদালত বলে, “করোনার দ্বিতীয় ঢেউ বৃদ্ধির জন্য দায়ী একমাত্র নির্বাচন কমিশনই। কমিশনের অফিসারদের বিরুদ্ধে খুনের মামলা রুজু হওয়া উচিত”। মাদ্রাজ হাইকোর্ট ভোটার প্রচার প্রসঙ্গে নির্বাচন কমিশনের ভূমিকা নিয়েও উষ্মা প্রকাশ করে বলে, “ভোট প্রচার যখন চলছিল, তখন আপনারা কি অন্য গ্রহে ছিলেন! আদালতের নির্দেশ সত্ত্বেও কোভিড প্রোটোকল নিশ্চিত করতে পারেনি কমিশন।” আদালত স্পষ্ট জানিয়েছে, তাদের গাফিলতির জন্যই দেশে আছড়ে পড়েছে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ। নির্বাচন কমিশনকে এই বলে তীব্র ভর্ৎসনা করেন মাদ্রাজ হাই কোর্টের প্রধান বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায়। মাদ্রাজ হাই কোর্টের এই বক্তব্যের পর মাদ্রাজ হাই কোর্টের কাছেই কমিশনের তরফে আবেদন করে জানানো হয় , সংবাদমাধ্যম যেন আদালতের শুনানির সময় বিচারপতির মৌখিক পর্যবেক্ষণ দেখে মন্তব্য না করে। লিখিত রিপোর্টের রেকর্ডের উপর ভিত্তি করেই খবর করা উচিত। এই প্রসঙ্গে কমিশনের বক্তব্য, “স্বাধীন সাংবিধানিক এজেন্সি হিসেবে দেশে নির্বাচন করানোর গুরু দায়িত্ব থাকে কমিশেনর উপর রয়েছে । মিডিয়ার খবর সেই কমিশনের ভাবমূর্তি নষ্ট করছে।” নিজেদের কাঁধ থেকে কার্যত দায় ঝেড়ে ফেলতে তাদের কমিশনের আরও দাবি, রাজনৈতিক নেতা-নেত্রীরা নিজেদের কর্তব্য পালন করতে ব্যর্থ হয়েছেন। কিন্তু মাদ্রাজ হাই কোর্ট কমিশনের কমিশনের বক্তব্যকে প্রাধান্য দেয়নি। এরপরই সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয় নির্বাচন কমিশন। কিন্তু আজ সেখানেও ধাক্কা খায় তারা।


সংযুক্ত ছবি (1 ছবি)



0 Comment(s)

Sign In to comment.
নির্বাচন কমিশনকে কড়া বার্তা সুপ্রিম কোর্টের,সংবাদমাধ্যমকে দোষারোপ করা বন্ধ করুন
May 6, 2021, 7:14 p.m.
  

জনতার কলম ,নিজস্ব প্রতিনিধি নয়াদিল্লি: সুপ্রিম কোর্টেও ধাক্কা খেল কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশন। কিছুদিন আগে মাদ্রাজ হাই কোর্ট করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের জন্য কমিশনকে দায়ী করেছিল। তার বিরোধিতা করেই সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিল কমিশন। কিন্তু সেখানেও ধাক্কা খেল তারা। এই মন্তব্য যাতে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম না দেখানো হয়, নির্বাচন কমিশনের সেই আবেদনও খারিজ করে দিল আদালত। কমিশনের দাবি নস্যাৎ করে দিয়ে শীর্ষ আদালত স্পষ্ট জানিয়ে দিল সংবাদমাধ্যমকে খবর প্রকাশ করা থেকে বিরত রাখা যাবে না। সুপ্রিম কোর্টের তরফে এদিন বলা হয়, আর্টিকেল ১৯-এ শুধু জনগণের বাকস্বাধীনতা ও মত প্রকাশের অধিকার দেওয়া হয়নি। গণমাধ্যমকেও কাছে এই অধিকার দেওয়া হয়েছে। গণমাধ্যমেক কণ্টরোধ করা সুপ্রিম কোর্টের পক্ষে পশ্চাদপসরণ হবে। সংবাদমাধ্যমকে আদালতের কার্যক্রমের রিপোর্ট করা থেকে বিরত রাখতে কমিশন যে দাবি তুলেছে তার এদিন এভাবেই জবাব দেয় দেশের শীর্ষ আদালত। এর পাশাপাশি দেশের করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় দেশের বিভিন্ন হাই কোর্টগুলি যেভাবে একাধিক পদক্ষেপ গ্রহণ করছে, তারও এদিন ভূয়সী প্রশংসা করে বিচারপতি ডি ওয়াই চন্দ্রচূড়ের বেঞ্চ। করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি নিয়ে নির্বাচন কমিশনকে তুলোধনা করে মাদ্রাজ হাই কোর্ট। আদালত বলে, “করোনার দ্বিতীয় ঢেউ বৃদ্ধির জন্য দায়ী একমাত্র নির্বাচন কমিশনই। কমিশনের অফিসারদের বিরুদ্ধে খুনের মামলা রুজু হওয়া উচিত”। মাদ্রাজ হাইকোর্ট ভোটার প্রচার প্রসঙ্গে নির্বাচন কমিশনের ভূমিকা নিয়েও উষ্মা প্রকাশ করে বলে, “ভোট প্রচার যখন চলছিল, তখন আপনারা কি অন্য গ্রহে ছিলেন! আদালতের নির্দেশ সত্ত্বেও কোভিড প্রোটোকল নিশ্চিত করতে পারেনি কমিশন।” আদালত স্পষ্ট জানিয়েছে, তাদের গাফিলতির জন্যই দেশে আছড়ে পড়েছে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ। নির্বাচন কমিশনকে এই বলে তীব্র ভর্ৎসনা করেন মাদ্রাজ হাই কোর্টের প্রধান বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায়। মাদ্রাজ হাই কোর্টের এই বক্তব্যের পর মাদ্রাজ হাই কোর্টের কাছেই কমিশনের তরফে আবেদন করে জানানো হয় , সংবাদমাধ্যম যেন আদালতের শুনানির সময় বিচারপতির মৌখিক পর্যবেক্ষণ দেখে মন্তব্য না করে। লিখিত রিপোর্টের রেকর্ডের উপর ভিত্তি করেই খবর করা উচিত। এই প্রসঙ্গে কমিশনের বক্তব্য, “স্বাধীন সাংবিধানিক এজেন্সি হিসেবে দেশে নির্বাচন করানোর গুরু দায়িত্ব থাকে কমিশেনর উপর রয়েছে । মিডিয়ার খবর সেই কমিশনের ভাবমূর্তি নষ্ট করছে।” নিজেদের কাঁধ থেকে কার্যত দায় ঝেড়ে ফেলতে তাদের কমিশনের আরও দাবি, রাজনৈতিক নেতা-নেত্রীরা নিজেদের কর্তব্য পালন করতে ব্যর্থ হয়েছেন। কিন্তু মাদ্রাজ হাই কোর্ট কমিশনের কমিশনের বক্তব্যকে প্রাধান্য দেয়নি। এরপরই সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয় নির্বাচন কমিশন। কিন্তু আজ সেখানেও ধাক্কা খায় তারা।

Ad Image Here